চক্ষু রোগ, স্বাস্থ্য বিষয়ক ব্লগ

চোখ দিয়ে পানি পড়া ও সকল পদ্ধতির ডাক্তারদের বক্তব্য।

চোখ দিয়ে পানি পড়া সমস্যা

কোনো কারণে চোখে অতিরিক্ত পানি তৈরি হলে, অথবা নেত্রনালী বন্ধ হয়ে গেলে চোখের পানি উপচে পড়ে, একে লেক্রিমেশন বা এপিফোরা বলে। চোখের পানির কাজ চোখকে আর্দ্র রাখা । প্রতিনিয়তই চোখের পানি তৈরি হচ্ছে এবং পানি নেত্রনালী দিয়ে নাকের মাধ্যমে বের হয়ে যাচ্ছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে চোখে অতিরিক্ত পানি ক্ষরণ হয় কিংবা নেত্রনালীর প্রতিবন্ধকতা জনিত কারণে পানি বের হয়ে যেতে পারেনা ফলে চোখ দিয়ে অতিরিক্ত পানি পড়ে। চোখ দিয়ে অতিরিক্ত পানি পড়ার প্রধান কারনগুলোর মধ্যে রয়েছে- এলার্জি, চোখের ইনফেকশন, চোখে আঘাত বা বাহ্যিক বস্তু পড়া, নেত্রনালীর ইনফেকশন, নেত্রনালীর প্রতিবন্ধকতা ইত্যাদি। কিছু কিছু ক্ষেত্রে শিশুদের জন্মগত ভাবে এই সমস্যা হতে পারে। আবার বৃদ্ধ বয়সেও এসমস্যা দেখা দিতে পারে।

চোখ দিয়ে পানি পড়া এর পেছনে দুটো কারণ থাকে।

১। চোখে বেশি পরিমান পানি তৈরী হচ্ছে, অথবা

২। যে নালী দিয়ে পানি যায় সেই নালী বন্ধ হয়ে আছে।

 

চোখ দিয়ে পানি পড়ার সাথে যুক্ত প্রধান লক্ষণ এবং উপসর্গঃ

১। চোখ দিয়ে নির্গত পূঁজ বা জল সাধারণত হলুদ বা সবুজ রঙের হতে পারে ;

২। চোখের পলকের উপর এবং পাতায় শুকনো পূঁজ থাকে ;

৩। ঘুম থেকে উঠার পর সেই ব্যক্তির চোখের পাতা দুটি চটচটে অবস্থায় অথবা একসাথে জুড়ে থাকাতে দেখা যায় ;

৪। সাধারণত চোখের পাতা ফোলা ফোলা ভাব দেখা যায়।

 

চোখে বেশি পানি তৈরি হওয়ার কারণঃ

১। বর্তমান সময়ে বায়ু দূষণের কারণে চোখ উঠার প্রবণতা বেশী । তার জন্য চোখ দিয়ে পানি পড়তে পারে।

২। কর্ণিয়াতে কোন আঘাত পাওয়ার কারনে ।

৩। অ্যালার্জি জনিত কারণেও পানি পড়তে পারে।

৪। চোখের পাপড়ি ভেতরের দিকে ঢুকে গেলে সেক্ষেত্রেও চোখ দিয়ে পানি পড়তে পারে।

৫। যে নালী দিয়ে পানি যাওয়ার কথা সে নালী যদি বন্ধ থাকে অথবা তা সরু হয়ে যায় তাহলেও পানি বাইরে বেরিয়ে আসে।

 

চোখ দিয়ে পানি পড়া সমস্যায় করণীয়ঃ

১। শিশুদের ক্ষেত্রে চোখ থেকে পানি পড়লে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চোখের কোনায় মালিশ এবং এন্টিবায়োটিক ড্রপ ব্যবহারের ফলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পানি পড়া বন্ধ হয়ে যায়।

২। অনেক ক্ষেত্রে প্রোবিং সার্জারি এর মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করতে হয়।

৩। তরুণ বয়সে নেত্রনালীর সমস্যার কারণে চোখ থেকে পানি পড়লে নিয়মিত ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী এন্টিবায়োটিক ড্রপ অথবা এন্টিবায়োটিক/স্টেরইড-এর মিশ্রণ ব্যবহার করলে এ সমস্যা সমাধান হয়ে যায়।

৪। অবশ্যই চোখে জমে থাকা পুঁজ নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে।

৫। ওষুধে যদি ভালো না হয়, তাহলে ‘ডিসিআর’ অপারেশনের মাধ্যমে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এ সমস্যার সম্পূর্ণ সমাধান সম্ভব।

৬। অবশ্যই মনে রাখবেন, যেসব বয়স্ক লোকের ছানিরোগ আছে তাদের যদি একই সাথে নেত্রনালীর সমস্যার কারণে চোখ থেকে পানি ও পুঁজ বের হয়, তাহলে তাদের অবশ্যই ছানি অপারেশনের পূর্বেই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী বয়সভেদ অনুসারে ডিসিআর অথবা ডিসিটি অপারেশন করে নিতে হবে।

অনলাইনে আমাদের অবিজ্ঞ দাক্তারদের থেকে পরামর্শ নিতে এখানে ক্লিক করুন  এপয়েন্টমেন্ট

[videogallery id=”water-eyes-alo”]

[videogallery id=”water-eyes-homeo”]

[videogallery id=”water-eyes-harbal”]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *