স্ত্রী প্রজনন রোগ, স্বাস্থ্য বিষয়ক ব্লগ

মাসিকে অধিক রক্তক্ষরণ ও সকল পদ্ধতির ডাক্তারদের বক্তব্য।

মাসিকে অধিক রক্তক্ষরণ

এনিমিয়ার অন্যতম কারন। এ ঘটনা দুই ভাবে ঘটতে পারে। স্বল্পস্থায়ী মাসিকে অধিক রক্তক্ষরন কিংবা মাসিক অধিক দিন হওয়ার ফলে মোট রক্তক্ষরনের পরিমান বেড়ে যাওয়া। স্বাভাবিক ভাবে মাসিকের স্থায়ীত্বকাল ৩-৭ দিন। অধিক রক্তক্ষরনের প্রধান লক্ষণ শরীর দুর্বল অনুভব হওয়া। এনিমিয়া থাকা। মাসিকে অধিক রক্ত ক্ষরণ হলে বিশেষত যদি সেটি হঠাৎ করে হয় তবে দ্রুত একজন এমবিবিএস মানের চিকিৎসকের নিকট প্রেরণ করতে হবে। কারন এ ক্ষেত্রে সঠিক কারন নির্ণয় করে চিকিৎসা প্রদান করতে হয়।

 

প্রাথমিক চিকিৎসা

মাসিক চলাকালীন সময়ে প্রচুর চিনির শরবত কিংবা গ্লুকোজ শরবত পান করলে দুর্বলতা কম হতে পারে।

 

ঔষধ। তাৎক্ষনিক

জেনেরিক: ট্রানেক্সামিক এসিড (tranexamic acid) ব্র্যান্ড : জামিক (xamic) প্রস্তুতকারক: রেনাটা ডোজ: ১ টি ক্যাপসুল দিনে ২-৩ বার রক্তক্ষরণ হ্রাস না হওয়া পর্যন্ত (সাধারণত ৩-৪ দিন)।

পরবর্তীতে রোগীকে একজন স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা চিকিৎসকের নিকট প্রেরণ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *