পুরুষ প্রজনন রোগ, স্বাস্থ্য বিষয়ক ব্লগ

ইরেকটাইল ডিসফাংশন এর কারণ ও সকল পদ্ধতির ডাক্তারদের বক্তব্য।

ইরেকটাইল ডিজফাংকশন 

পুরুষাঙ্গ সঠিক রূপে দৃঢ় না হলে তাকে ইরেকটাইল ডিজফাংকশন (Erectile dysfunction) বলা হয়। এটি একটি রোগাবস্থা। ইরেকটাইল ডিজফাংকশন বলতে বলতে যৌন উত্তেজনার সময় পুরুষাঙ্গ স্ত্রী অঙ্গে প্রবেশ করানোর মত দৃঢ় না হওয়া। এর বিভিন্ন কারন রয়েছে; যেমন- কোমড়ে আঘাত, মস্তিস্কের সমস্যা, ডায়বেটিস মেলাইটাস, বৃদ্ধবয়স, মানসিক চাপ ইত্যাদি। প্রকৃত পক্ষে এটি বিবাহিত পুরুষদের সমস্যা। মনে রাখতে হবে আমাদের দেশের পরিপ্রেক্ষিতে বিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত এই সমস্যার উপস্থিতি সঠিকভাবে সনাক্ত করা সম্ভব নয়।

 

ইরেকটাইল ডিজফাংকশন হলে দ্রুত একজন ইউরোলজিস্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়ার কথা বলতে হবে ।

 

প্রাথমিক চিকিৎসা

সাধারণ ব্যবস্থাপনা

মানসিক চাপ মুক্ত থাকতে হবে।

অপুষ্টি দূর করতে হবে।

ডায়বেটিস, হাইপারটেনশন নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।

 

ঔষধ। ১) এশি-ইব্রেকটাইল ডিজফাংকশন।

= জেনেরিক: টাডালাফিল (Tadalafil)

-আডাফিল-১০ মিগ্রা (Adafil-10) প্রস্তুতকারক-বেক্সিমকো | ভেজ: একটি ট্যাবলেট শারীরিক সম্পর্কের ১ঘন্টা পূর্বে।

 

এ ধরনের ঔষধের মারাত্নক কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে তাই খুব সাবধানতার সাথে ঔষধ সে করতে হবে। বিশেষত যাদের হাইপারটেনশন, হার্টের সমস্যা, এজমা আছে তাদের ক্ষেত্রে খুবই সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। নিম্ন লিখিত ঔষধটির সাথে অনেক ঔষধের ইন্টেরেকশন আছে বিধায় খুব ভাল করে যেনে বুঝে ঔষধ। প্রয়োগ ছুতে হবে। উপরোক্ত ঔষধে কাজ না হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *