স্ত্রী প্রজনন রোগ, স্বাস্থ্য বিষয়ক ব্লগ

স্তনে ফোঁড়া ও সকল পদ্ধতির ডাক্তারদের বক্তব্য।

স্তনে ফোঁড়া

সাধারণত স্তন্যদায়ী মায়েদের ক্ষেত্রে বেশি দেখা যায়। স্তনের ভেতরে দুধ জমে গিয়ে তাতে ইনফেকশন হয়ে স্তনে ফোঁড়া হয়।

 

স্তনে ফোড়া হলে স্তনে চাকা অনুভুত হয়, আক্রান্ত স্তন লাল হতে পারে, স্তনে বেদনা * অনুভুত হয়, স্তনবৃন্ত দিয়ে পুঁজ নির্গত হতে পারে। স্তনে ফোঁড়ার প্রধান চিকিৎসা ফোড়া কেটে সেখান থেকে পুঁজ বের করে ফেলা।

 

তবে প্রাথমিক চিকিৎসা হিসেবে বেদনা নাশক ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে এটি স্তন্যদায়ী মায়ের ক্ষেত্রে বেশি দেখা যায় বিধায় এ ক্ষেত্রে আইবুপ্রোপ্রোফেন ব্যবহার করা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে সম্ভাব্যঔষধ নির্দেশনা

 

ক) এনালজেসিক।

| জেনেরিক: আইবুপ্রোপ্রোফেন (ibuprofen)

  • ব্র্যান্ড : ফ্লামেক্স (Flamex) , প্রস্তুতকারক: এ.সি.আই

ডোজ: ১ টি ট্যাবলেট সকাল, দুপুর ও রাতে ভরা পেটে-২ দিন।

খ) এন্টি আলসারেন্ট

জেনেরিক: অমেপ্রাজল (omeprazole); ব্রান্ড: ট্যাব-জেলড্রিন-২০ (xeldrin-20) প্রস্তুতকারক- এ.সি.আই। ডোজ: প্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে সকালে ও রাতে খাবার ৩০ মি পূর্বে-১০ দিন

পরবর্তীতে দ্রুত এমবিবিএস চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *